Connect with us

ক্রিকেট

পাকিস্তান নিয়ে চিন্তিত নন রোহিত

Published

on

রে স্পোর্টজ নিউজ ডেস্ক – রবিবার ভারত বনাম পাকিস্তান ম্যাচ শুরুর বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই জোর আলোচনা চলছে, নিউইয়র্কের পিচ নিয়ে। তা আরও অনেকটাই বেড়েছে শনিবারের নেদারল্যান্ডস বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচ দেখার পরে। এই ম্যাচে প্রচুর উইকেট এবং কম রান ওঠা দেখে ইতিমধ্যেই চিন্তার ভাঁজ পড়েছে ভারত এবং পাকিস্তান দুই দলের সমর্থকদের কপালেই। তবে শনিবার সাংবাদিক সম্মেলনে এসে ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন তাঁর দল শুধু পিচ নয়, পাকিস্তান ক্রিকেটারদের নিয়েও তেমন ভাবতি নন।

শনিবার কড়া নিরাপত্তার ঘেরাটোপে, সাংবাদিক সম্মেলনে এসে রোহিত বলেন,”আমি সব সময় মনে করি ভাল ক্রিকেট খেলাটাই আমাদের প্রধান কাজ। প্রতিপক্ষ বা পিচ কেমন হবে সেটা নিয়ে ভেবে সময় নষ্ট করার প্রয়োজন নেই। আমাদের দলগতভাবে ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে। তাহলেই দেখবেন পিচ যেমনই হোক, যেকোনও প্রতিপক্ষের মুখোমুখি হয়েও দল ঠিক জিতবে।”

প্রসঙ্গত ২০২৩ সালে ভারত বরাবরই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভালো খেলেছে। মোট তিনবারের সাক্ষাতে তিনবারই জিতেছেন রোহিতরা। এর মধ্যে এশিয়া কাপ, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং একদিনের বিশ্বকাপ ম্যাচ ছিল। তবে সেসব নিয়ে আর ভাবতে রাজি নন রোহিত। তিনি বলছেন,”আমরা প্রায় সাত মাস আগে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে এশিয়া কাপ খেলেছিলাম। তারপরে একদিনের বিশ্বকাপেও আমরা ওদের মুখোমুখি হয়েছিলাম এবং জিতেছিলাম। তবে সেসব নিয়ে এখন ভেবে কোনও লাভ নেই। ভারত বনাম পাকিস্তান ম্যাচ মানেই সেটা সকলের কাছেই চাপের। যে দল সেই চাপ সামলাতে পারবে, তাঁরাই জিতবে।”

প্রথম ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে ব্যাট করার সময় অর্ধশতরান করলেও কাঁধে চোট পেয়েছিলেন রোহিত। সেই চোট নিয়ে প্রশ্ন করা হলে রোহিত বলেন,”চোট খেলার অঙ্গ। তবে সেসব দিকে নজর না দিয়ে দল কেমন খেলছে সেটা নিয়ে বেশি ভাবা প্রয়োজন। এখানকার পরিবেশ অন্য জায়গা থেকে অনেকটাই আলাদা, তাই আমি পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যাট করার চেষ্টা করেছি।”

ক্রিকেট

সাহসিকতাই ভরসা কুলদীপের

Published

on

রে স্পোর্টজ নিউজ ডেস্ক – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্যায়ে ভারতীয় দলে সুযোগ হয়নি কুলদীপ যাদবের। তবুও কুলদীপ কিন্তু ভেঙে পড়েননি, বরং অপেক্ষা করছিলেন একটি সুযোগের। এরপরে ওয়েস্ট ইন্ডিজে সুপার এইট পর্বে পরপর দুটি ম্যাচে সুযোগ পেয়েই বাজিমাত করেছেন ভারতীয় দলের এই তারকা স্পিনার। শনিবার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ৪ ওভার বল করে মাত্র ১৯ রান দিয়ে ৩টি উইকেট নিয়েছেন কুলদীপ।

প্রসঙ্গত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বোলাররা অনেক বেশি সাহায্য পাচ্ছিলেন, তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজে স্পিনারদের জন্য সাহায্য থাকলেও, ব্যাটারাও বড় রান করছেন। সেখানে কীভাবে নিজেকে মেলে ধরছেন সেই প্রশ্নের উত্তরে কুলদীপ বলেন,”দেখুন ব্যাটারদের যখন ওভার প্রতি ১০ রান করে প্রয়োজন হয়, তখন স্বাভাবিকভাবেই তাঁরা আপনাকে আক্রমণ করবে। আমার তাই একটাই প্ল্যান ছিল, নিজের লেন্থ ঠিক রাখা। ব্যাটাররা অবশ্যই আক্রমণ করবে, তবে লেন্থ ঠিক রেখে বল করতে পারলে, আমার কাছে ব্যাটারদের আউট করার সুযোগ থাকে। যদি সে বল মিস করে, তবে আমি উইকেট পাবোই।”

অ্যান্টিগার পিচে বাংলাদেশের ব্যাটাররা কুলদীপের ভেল্কি বুঝতেই পারেননি। নিজের পারফরমেন্স নিয়ে খুশি হলেও, কুলদীপের মাথায় এখন থেকেই ঘুরছে অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ। তিনি বলছেন,”আমি মনে করি যে কোনও ম্যাচই স্বাভাবিকভাবেই নেওয়া প্রয়োজন। আমি জানি আমরা সুপার এইটে খেলছি, এবং সেখানে পারফর্ম করার চাপ থাকে। তবে সবকিছু সামলে সঠিক প্ল্যান অনুযায়ী বল করা প্রয়োজন। সামনেই অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ। ওটাও খুব কঠিন ম্যাচ হতে চলেছে। তবে ওখানেও আমরা নির্দিষ্ট প্ল্যানিং অনুযায়ী খেলতে চাই।”

Continue Reading

ক্রিকেট

হার্দিকের পুনর্জন্ম দেখছেন সেওয়াগ

Published

on

রে স্পোর্টজ নিউজ ডেস্ক – ঠিক যেন পুনর্জন্ম হয়েছে ভারতীয় দলের তারকা অলরাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়ার। এমনটাই মনে করেন ভারতের প্রাক্তন ওপেনার বীরেন্দ্র সেওয়াগ। শনিবার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইটের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ব্যাট হাতে ২৭ বলে ৫০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন হার্দিক। তাঁর সৌজন্যেই ভারত নির্ধারিত কুড়ি ওভারে ১৯৬ রানের পাহাড়ে পৌঁছয়। দিনের শেষে ভারত ম্যাচ জেতার পরে তাই সেওয়াগ বলছেন হার্দিকের দারুন পারফর্মেন্স ভারতীয় দলের জন্য,”সোনায় সোহাগা”।

ক্রিকেট ওয়েবসাইট ক্রিকবাজের অনুষ্ঠানে সেওয়াগ বলেন,”হার্দিক হল বিনোদনের সম্ভার। যখন ও হেঁটে যায় সেটাও দর্শকদের বিনোদন দেয়। এটাই ওকে সকলের থেকে আলাদা করে। হার্দিক সবসময় ক্লিন হিটিংয়ে বিশ্বাস করে, তাই সকলেই ওর ব্যাটিং উপভোগ করে।” তিনি আরো যোগ করেন,”আমরা এই হার্দিক পান্ডিয়াকেই খুব মিস করছিলাম, যে ২৭ বলে বিধ্বংসী ৫০ রানের ইনিংস খেলতে পারে। এখন আর ও সেই হার্দিক নেই, যে প্রথমে ৩০ বলে ৩০ রান করবে এবং তারপরে নিজের বড় শট খেলবে।”

এখনকার হার্দিককে দেখে, সেওয়াগের একেবারে শুরুর দিকের পান্ডিয়াকে মনে পড়ে যাচ্ছে। সেই স্মৃতি রোমন্থন করতে গিয়ে সেওয়াগ বলেন,”আমি হার্দিকের খেলা উপভোগ করি। এক সময় ও এভাবেই মাঠে নামতো এবং এভাবেই ব্যাটিং করত। হার্দিক যখন মাঠে নেমে দলের হয়ে একটা করে রান নেয়, সেটা দলের জন্য সোনায় সোহাগা বলা যায়। হার্দিক যখন ১৮০-৯০ স্টাইক রেট রেখে ব্যাট করে সেটা সকলের জন্য বড় বিনোদন।”

Continue Reading

ক্রিকেট

প্রতিশোধের লক্ষ্যে ভারত

Published

on

সৌরভ রায়; সেন্ট লুসিয়া, ২৩ জুন – জমে উঠেছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার এইট পর্ব। ভারতীয় সময়ে রবিবার সকালে আফগানিস্তান এই প্রতিযোগিতার অন্যতম শক্তিশালী দল তথা ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সকলকে চমকে দিয়েছে। ফলে গ্রুপ ১ একেবারে ওপেন হয়ে গেছে। এই গ্রুপ থেকে তিনটি দল ভারত, অস্ট্রেলিয়া এবং আফগানিস্তান যে কেউ পরবর্তী পর্বে যেতে পারে।

আর এমন পরিস্থিতিতেই সোমবার সেন্ট লুসিয়ার ড্যারেন স্যামি জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হতে চলেছে রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন ভারতীয় ক্রিকেট দল। এই গ্রুপে ভারত তাঁদের প্রথম দুটি ম্যাচ জিতে তুলনামূলকভাবে ভাল জায়গায় থাকলেও, কোনও দলই এখনও সেমিফাইনালের যোগ্যতা অর্জন করেনি।

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ভারত জিতলে তাঁরা গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে চলে যাবে। তবে ভারত যদি হেরে যায় সেক্ষেত্রে ভারতের সেমিফাইনালে যাওয়া না যাওয়া নির্ভর করবে নেট রান রেটের উপর। অস্ট্রেলিয়া যদি ভারতকে বড় ব্যবধানে হারায়, এবং আফগানিস্তান অন্য ম্যাচে বাংলাদেশকে বড় ব্যবধানে হারাতে সক্ষম হয়, তবে ভারতেরও ছিটকে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। খুবই ক্ষীণ হলেও অঙ্কের বিচারে সেই সম্ভাবনাও রয়েছে।
অন্যদিকে আরও একটা অঙ্ক রয়েছে। আফগানিস্তান যেহেতু অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েছে, তাই এবারে মিচেল মার্শরা যদি ভারতের বিরুদ্ধে হেরে যান,এবং আফগানিস্তান অন্যদিকে বাংলাদেশকে হারিয়ে দেয় তবে অস্ট্রেলিয়া এই প্রতিযোগিতা থেকে ছিটকে যাবে। তাই ভারতের কাছে সুযোগ রয়েছে শেষ ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ ফাইনালের হারের বদলা নেওয়ার। সমস্ত ভারতীয় ক্রিকেটপ্রেমীদের নজর সেদিকেই থাকবে।

তবে সেন্ট লুসিয়ার উইকেটে যে ভারতীয় স্পিনাররা অনেক বেশি সুবিধা পাবেন তা এখনই বলে দেওয়া যায়। এখানকার উইকেট স্পিন সহায়ক এবং দিনের বেলার ম্যাচগুলিতে স্পিনাররা অনেক বেশি সুবিধা পাচ্ছেন। ফলে ভারতীয় দলের স্পিন বিভাগের দিকে তাকালে এবং কুলদীপ যাদব যেভাবে পারফর্ম করছেন, তাতে বলাই যায় ভারত এই ম্যাচে কিছুটা হলেও এগিয়ে থেকে মাঠে নামবে। এই জায়গাটি যেহেতু সমুদ্রের একেবারে পাশে, তাই এখানে যখন তখন বৃষ্টি নামতে পারে। সে কারণে আগামীকালের ম্যাচে টস খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে। যেহেতু দিনের বেলায় ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে, তাই এখানে টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করাটাই আদর্শজনক। তবে যদি বৃষ্টি হয় সেক্ষেত্রে তখন কী সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় সেটাই দেখার।

Continue Reading

Trending